×
ব্রেকিং নিউজ :
এএসপি আনিসুলের মৃত্যুর ঘটনায় মামলা, গ্রেপ্তার ১০ *** এসআই আকবরকে আদালতে তোলা হতে পারে আজ *** চট্টগ্রামে গ্যাস লাইন বিস্ফোরণে একই পরিবারের ৯ জন দগ্ধ *** আজ সংসদের বিশেষ অধিবেশনে ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি *** ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা হচ্ছে না *** প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে নতুন শনাক্ত ১,৪৭৪ জন, মৃত্যু ১৮ *** বাউফল সরকারি কলেজে অধ্যক্ষ না থাকায় বেতন ও বোনাস পাচ্ছেন না শিক্ষক ও কর্মচারীরা *** যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও ভাইস প্রেসিডেন্ট কমলা হ্যারিসকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন *** টুয়াখালীতে হিন্ধু বৌদ্ধ খ্রীস্টান ঐক্য পরিষদের অবস্থান ও বিক্ষোভ মিছিল *** জো বাইডেন বিজয় ভাষণে দেশকে 'একতাবদ্ধ' করার প্রতিশ্রুতি দিলেন ***
  • প্রকাশিত : ২০২০-০৯-২৮
  • ৭৭ বার পঠিত
  • নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বাধীনবাংলা, বিশেষ প্রতিনিধিঃ

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুব আলমের  জানাযা  বেলা  ১১টায় সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়েছে। জানাজা শেষে মিরপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তার মরদেহ দাফন করা হয়।  রবিবার সন্ধ্যা ৭টা ২৫ মিনিটে রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তার মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী, প্রধান বিচারপতিসহ অনেকেই। 

৭১ বছর বয়সি মাহবুবে আলমের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছিল। গত ৪ঠা সেপ্টেম্বর জ্বর নিয়ে সিএমএইচে ভর্তি হন অ্যাটর্নি জেনারেল।  নমুনা পরীক্ষায় তার শরীরে করোনা ধরা পড়ে।  এর মধ্যে গত শুক্রবার ভোরে হার্ট অ্যাটাক হলে তাকে দ্রুত আইউসিইউতে নেয়া হয়।

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ১৯৪৯ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি মুন্সিগঞ্জের লৌহজং উপজেলার মৌছামান্দ্রা গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৮ সালে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে অনার্স এবং ১৯৬৯ সালে লোক প্রশাসনে ডিগ্রি অর্জন করেন। ১৯৭২ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এলএলবি ডিগ্রি নেন তিনি। ১৯৭৯ সালে ভারতের নয়াদিল্লিরইনস্টিটিউট অব কনস্টিটিশনাল অ্যান্ড পার্লামেন্টারি ষ্ট্রাডিজথেকে সাংবিধানিক আইন সংসদীয় প্রতিষ্ঠান পদ্ধতি বিষয়ে ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন করেন। ছাত্র জীবনে বাম আন্দোলনে যুক্ত মাহবুবে আলম পরে বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের সহসভাপতির দায়িত্বও পালন করেন। সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনে বাংলাদেশে কমিউনিস্ট পার্টিতে বিভক্তির পর রাজনীতি ছেড়ে আইন পেশায় পুরোদমে সক্রিয় হন মাহবুবে আলম।

তিনি অবশ্য ১৯৭৩ সালেই বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে তালিকাভূক্ত হয়ে ঢাকা আইনজীবী সমিতির সদস্য হন। মাহবুবে আলম ১৯৭৫ সালে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে এবং ১৯৮০ সালে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে আইন পেশা পরিচালনার অনুমতি পান। ১৯৯৮ সালে আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। ১৯৯৩-৯৪ সালে তিনি সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক নির্বাচিত হন।

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকাকালে ১৯৯৮ সালের ১৫ নভেম্বর থেকে ২০০১ সালের অক্টোবর পর্যন্ত অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেলের দায়িত্ব পালন করেন মাহবুবে আলম। ২০০৭ সালে দেশে জরুরি অবস্থা জারির আগে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি ছিলেন মাহবুবে আলম।

সেনা নিয়ন্ত্রিত ওই সরকার আমলে শেখ হাসিনা গ্রেফতার হওয়ার পর শীর্ষ আইনজীবীদের অনেকে পিছুটান দিলেও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর পক্ষে শক্ত হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন মাহবুবে আলম। দৃশ্যত সেই কারণেই তার ওপর আস্থাবান ছিলেন শেখ হাসিনা। সর্বশেষ সংসদ নির্বাচনে জন্মস্থান মুন্সীগঞ্জ থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হতে চেয়েছিলেন মাহবুবে আলম। তবে তাকে প্রার্থী না করে অ্যাটর্নি জেনারেলের দায়িত্বই চালিয়ে যেতে বলা হয়।

অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে সর্বোচ্চ আদালতে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলার বিচারে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন মাহবুবে আলম। এছাড়া সংবিধানের পঞ্চম, সপ্তম, ত্রয়োদশ ষোড়শ সংশোধনী মামলা পরিচালনাও করেন তিনি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ডের মামলায়ও যুক্ত ছিলেন মাহবুবে আলম। আলোচিত বিডিআর বিদ্রোহ হত্যা মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবীর দায়িত্বে ছিলেন তিনি। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর ২০০৯ সালের ১৩ জানুয়ারি রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পান মাহবুবে আলম। তার পর থেকে টানা ১১ বছর তিনি দায়িত্বে বহাল ছিলেন। পদাধিকার বলে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যানও ছিলেন তিনি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি পদে বহাল ছিলেন।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
ফেসবুকে আমরা...
ক্যালেন্ডার...

Sun
Mon
Tue
Wed
Thu
Fri
Sat